Skip to content
Home » ৫ম দিন – মসীহকে আঘাত করতে শয়তান নেমে এল

৫ম দিন – মসীহকে আঘাত করতে শয়তান নেমে এল

  • by

নবী ঈসা আল মসীহ (আঃ) তাঁর শেষ সপ্তাহের চতুর্থ দিনে তাঁর প্রত্যাবর্তন সম্বন্ধে ভবিষ্যদ্বাণী করলেন I ইঞ্জিল তখন বিবরণ দিল কিভাবে ধর্মীয় নেতারা তাঁকে গ্রেফতার করতে চাইল I শয়তান (বা ইবলিস) এটিকে একটি উপায় হিসাবে নবীকে আঘাত করতে ব্যবহার করল – তার প্রকাশ্য শত্রুকে I কিভাবে হল এটিকে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে I   

 ১ তখন খামিরহীন রুটির পর্ব, যাকে নিস্তারপর্ব্ব বলে, কাছাকাছি ছিল; 
২ আর প্রধান যাজকেরা ও ব্যবস্থার শিক্ষকেরা কীভাবে তাঁকে হত্যা করতে পারে, তারই চেষ্টা করছিল, কারণ তারা লোকদের ভয় করত।
৩ আর শয়তান ঈষ্করিয়োতীয় নামে যিহূদার ভিতরে প্রবেশ করল, এ সেই বারো জনের একজন। 
৪ তখন সে গিয়ে প্রধান যাজকদের ও সেনাপতিদের সাথে কথাবার্তা বলল, কীভাবে তাঁকে তাদের হাতে সমর্পণ করতে পারবে।
৫ তখন তারা আনন্দিত হল ও তাকে টাকা দিতে প্রতিজ্ঞা করল। তাতে সে রাজি হল এবং 
৬ জনতার নজরের বাইরে তাঁকে ধরিয়ে দেবার সুযোগ খুঁজতে লাগল।

লুক ২২:১-৬

আমরা দেখি যে শতান/শয়তান নবীকে বিশ্বাসঘাত করার জন্য এই দ্বন্দের সুযোগটিকে  যুদাসের ভেতরে ‘প্রবেশ’ করতে নিয়েছিল I সুরা ফাতির (সুরা ৩৫ – প্রবর্তক) এবং সুরা ইয়া-সিন (সুরা ৩৬ – আর নেই) শয়তানের সম্বন্ধে বলে যে: 

শয়তান তোমাদের শত্রু; অতএব তাকে শত্রু রূপেই গ্রহণ কর। সে তার দলবলকে আহবান করে যেন তারা জাহান্নামী হয়।

সুরা ফাতির ৩৫:৬

হে বনী-আদম! আমি কি তোমাদেরকে বলে রাখিনি যে, শয়তানের এবাদত করো না, সে তোমাদের প্রকাশ্য শত্রু?এবং আমার এবাদত কর। এটাই সরল পথ।শয়তান তোমাদের অনেক দলকে পথভ্রষ্ট করেছে। তবুও কি তোমরা বুঝনি?

সূরা ইয়া-সিন ৩৬:৬০-৬২

ইঞ্জিলের শেষভাগে, শয়তানকে এক দর্শনের মধ্যে বর্ণনা করা হয়েছে:

৭ আর স্বর্গে যুদ্ধ হল; মীখায়েল ও তাঁর দূতেরা ঐ বিরাটাকার সাপের সঙ্গে যুদ্ধ করতে লাগলেন। তাতে সেই বিরাটাকার সাপ ও তার দূতেরাও যুদ্ধ করল,
৮ কিন্তু বিরাটাকার সাপটি জয়ী হবার জন্য যথেষ্ট শক্তিশালী ছিল না, সুতরাং স্বর্গে তাদের আর থাকতে দেওয়া হল না। 
৯ আর সেই বিরাটাকার সাপ ও তার দূতকে পৃথিবীতে ছুঁড়ে ফেলা হল; এ সেই পুরাতন বিরাটাকার সাপ যাকে দিয়াবল [অপবাদক] এবং শয়তান [বিপক্ষ] বলে, সে পৃথিবীর সব লোককে ভুল পথে নিয়ে যায়৷

প্রকাশিত বাক্য ১২:৭–৯

শয়তান আপনারও প্রকাশ্য শত্রু, যথেষ্ট ধূর্ততার সাথে সম্পূর্ণ জগতকে বিপথগামী করার এক শক্তিশালী ড্রাগন রূপে চিত্রিত করা হয়েছে I এই শত্রু, যেমন হজরত অদামের সাথে উদ্যানের মধ্যে ভবিষ্যদ্বাণী করা হয়েছিল, নবী ঈসা আল মসীহকে (আঃ) ধ্বংস করতে যুদার নিয়ন্রণ নিয়েছিল I ইঞ্জিল যেরকম লিপিবদ্ধ করে:    

আর সেই দিন থেকে সে তাঁকে ধরিয়ে দাওয়ার জন্য সুযোগ খুঁজতে লাগল।

মথি ৩৬:১৬

পরের দিন – দিন ৬ – নিস্তারপর্বের উৎসব ছিল যাকে হযরত মুসা (আঃ) ১৫০০ বছর পূর্বে শুরু করেছিলেন I কিভাবে শয়তান, যুদার মাধ্যমে, এই পবিত্র দিনে তার সুযোগ খুঁজে পেল? আমরা এটিকে পরে দেখব I

দিন 5 সারাংশ

কালপঞ্জি দেখায় কিভাবে বিশাল ড্রাগন, শয়তান, এই সপ্তাহের পঞ্চম দিনে, তার সবথেকে বড় শত্রুকে আঘাত করতে অগ্রসর হল – হযরত ঈসা আল মসিহ (আঃ) I

শয়তান, বিশাল ড্রাগন নবী ঈসা আল মসীহকে আঘাত করতে যুদার মধ্যে প্রবেশ করে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *